ভাগবত চন্দ্রশেখর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ভাগবত চন্দ্রশেখর
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম (১৯৪৫-০৫-১৭) ১৭ মে ১৯৪৫ (বয়স ৭২)
মহীশূর, কর্ণাটক, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরন ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরন লেগ ব্রেক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫৮)
২১ জানুয়ারি ১৯৬৪ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট ১২ জুলাই ১৯৭৯ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ২০)
২২ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৬ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ ওডিআই ২২ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৬ বনাম নিউজিল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি লিস্ট এ
ম্যাচ সংখ্যা ৫৮ ২৪৬
রানের সংখ্যা ১৬৭ ১১ ৬০০ ২৫
ব্যাটিং গড় ৪.০৭ - ৪.৬১ ২৫
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ২২ ১১* ২৫ ১৪*
বল করেছে ১৫৯৬৩ ৫৬ ৫৩৮১৭ ৪২০
উইকেট ২৪২ ১০৬৩
বোলিং গড় ২৯.৭৪ ১২ ২৪.০৩ ৩৮.৮৭
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৬ ৭৫
ম্যাচে ১০ উইকেট ১৯
সেরা বোলিং ৮/৭৯ ৩/৩৬ ৯/৭২ ৪/৬১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২৫/- ০/০ ১০৭/০ ১/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো, ১২ জানুয়ারি ২০১৭

ভাগবত সুব্রামানিয়া চন্দ্রশেখর (মারাঠি: भागवत चंद्रशेखर; জন্ম: ১৭ মে, ১৯৪৫) মহীশূরে জন্মগ্রহণকারী সাবেক প্রথিতযশা ভারতীয় ক্রিকেটার। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। দলে তিনি মূলতঃ লেগ স্পিনারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন চন্দ্র ডাকনামে পরিচিত ভাগবত চন্দ্রশেখর। বিশ্বের অন্যতম সেরা লেগ স্পিনার হিসেবে ১৯৬০ ও ৭০-এর দশকে ই.এ.এস. প্রসন্ন, বিষেন সিং বেদীশ্রীনিবাসন ভেঙ্কটরাঘবনকে নিয়ে ভারতীয় স্পিনার চতুষ্টয় একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন।[১]

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

খুব ছোট্ট অবস্থায় ৬ বছর বয়সে পোলিও রোগে আক্রান্ত হলে তাঁর ডানহাতে প্রভাব ফেলে। ১০ বছর বয়সে তাঁর হাত আরোগ্যলাভ করলে ক্রিকেটের প্রতি ঝুঁকে পড়েন।[২] প্রাথমিক শিক্ষা নিজ শহর মহীশূরে সমাপণ করেন।[২] বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় লেগ স্পিনার রিচি বেনো’র খেলার ধরন শৈশবেই তাঁর নজর কাড়ে।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ষোল বছরের দীর্ঘ খেলোয়াড়ী জীবনে ৫৮ টেস্টে অংশ নিয়ে ২৯.৭৪ গড়ে ২৪২ টেস্ট উইকেট লাভে সক্ষমতা দেখিয়েছেন।[১] ১৯৬৩ সালে লেগ স্পিন বোলার হিসেবে খেলার সিদ্ধান্ত নেন। তাঁর এ চিন্তাধারা সঠিক হিসেবে প্রমাণিত হয় ও খুব দ্রুত জাতীয় দলে খেলার জন্য নির্বাচিত হন।

১৯৬৪ সালে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বোম্বেতে অনুষ্ঠিত টেস্টে অংশগ্রহণের মাধ্যমে তাঁর টেস্ট অভিষেক ঘটে। ঐ টেস্টে তিনি চার উইকেট দখল করেছিলেন। ইংল্যান্ডে ভারতের প্রথম টেস্ট জয়ে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। ১৯৭১ সালে ওভালে অনুষ্ঠিত ঐ টেস্টে ৬/৩৮ পেয়েছিলেন। স্বাগতিক ইংল্যান্ডের তাঁর এ বোলিং পরিসংখ্যান ২০০২ সালে উইজডেন কর্তৃক শতাব্দীর সেরা ভারতীয় বোলিং নৈপুণ্যরূপে বিবেচিত হয়।[৩][৪] এ প্রসঙ্গে উইজডেন মন্তব্য করে যে, তিনি যথোচিত নিখুঁতভাবে নিজেকে মেলে ধরেছিলেন। ওভালের নিষ্প্রভ পীচেও অতিরিক্ত পেস আনয়ণ করে অবিস্মরণীয় কীর্তি গড়েছেন তিনি।[৫]

১৯৭৬ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত টেস্টে প্রসন্নকে নিয়ে ১৯ উইকেট নিয়ে দলের বিজয় নিশ্চিত করেন। এছাড়াও, ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়ায় ভারতের প্রথম টেস্ট জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। তবে ব্যাটহাতে ভীষণভাবে নাস্তানাবুদ হয়েছেন। তাঁর ব্যাটিং গড় মাত্র ৪.০৭।[৬] ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে চারবার শূন্য রান প্রাপ্তিতে বিশেষ ধরনের স্মারকসূচক গ্যারি-নিকোলস ব্যাট উপহার হিসেবে পান।[৭] সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে টেস্ট তিনি ২৩বার শূন্য রানের সন্ধান পান।[৮] এছাড়াও, টেস্টে উইকেটের (২৪২) তুলনায় অমর্যাদাকর কম রান (১৬৭) তুলেছেন।[৬] তাঁর সাথে কেবলমাত্র নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিস মার্টিন এ রেকর্ডের অধিকারী।[৯]

অর্জনসমূহ[সম্পাদনা]

১৯৬৪ সালে ইন্ডিয়ান ক্রিকেট কর্তৃক বর্ষসেরা ভারতীয় ক্রিকেটার মনোনীত হন। ১৯৭২ সালে উইজডেন কর্তৃপক্ষ তাঁকে অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটাররূপে ঘোষণা করে।[৪] একই বছরে পদ্মশ্রী[১০]অর্জুন পুরস্কার লাভ করেন তিনি।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. S Rajesh (১২ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "When spin was king"। ESPNcricinfo। সংগৃহীত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  2. Muddie, Raggi (২৭ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "The Spin Wizard – B S Chandrashekhar"। Karnataka.com। সংগৃহীত ১৪ এপ্রিল ২০১৩ 
  3. "This is my finest hour: Kapil Dev"The Sportstar Vol. 25 No. 31। ৮ মার্চ ২০০২। সংগৃহীত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  4. H Natarajan। "Players / India / Bhagwath Chandrasekhar"। ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১৪ এপ্রিল ২০১৩ 
  5. Williamson, Martin (১৩ আগস্ট ২০১১)। "India's day of glory"। ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১৪ এপ্রিল ২০১৩ 
  6. Frindall, Bill (২০০৯)। Ask BeardersBBC Books। পৃ: 44–45। আইএসবিএন 978-1-84607-880-4 
  7. Hanon, Peter (১২ নভেম্বর ২০১১)। "Polio clean bowled"The Age। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৩ 
  8. "Records / Test matches / Batting records / Most ducks in career"। ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৩ 
  9. Steven Lynch (২০ ডিসেম্বর ২০১১)। "Hughes' familiar problem, and Steyn's wickets"। ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৩ 
  10. "Padma Awards Directory (1954-2011)" (PDF)। Ministry of Home Affairs। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৩ 
  11. "List of Arjuna Award Winners"Ministry of Youth Affairs and Sportsআসল থেকে ২৫ ডিসেম্বর ২০০৭-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৩ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]